• শনিবার   ৩০ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৬ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

আমার রাজশাহী
২০৮

চারঘাটে গুচ্ছ গ্রামের কর্মহীনদের পাশে উপজেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চারঘাট

প্রকাশিত: ৩ এপ্রিল ২০২০  

রাজশাহীর চারঘাটে মরণব্যাধী করোনায় সাধারণ মানুষকে ঘরে রাখতে তাদের বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনী।

শুক্রবার সকালে উপজেলার আবাসন প্রকল্পের আওতায় বড়াল আদর্শ, হলিদাগাছী আবাসন ১ ও ২, ঝিকড়া আবাসন, বড়বড়িয়া ও ইউসুফপুর গুচ্ছগ্রামের ৫২০ জন কর্মহীন হতদরিদ্রের বাড়িতে খাবার পৌছে দেন তারা।

চারঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা সামিরা জানান, ভাইরাস জনিত রোগ করোনা মোকাবেলায় জরুরি দপ্তরগুলো ছাড়া ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ছাড়া দোকানপাট বন্ধ করে সকল মানুষকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যানবাহনও বন্ধ। ফলে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া বিভিন্ন পেশার মানুষ এখন কার্যত বেকার। তাদের কেউ যেন না খেয়ে না থাকে সেজন্য আমরা উপজেলা প্রশাসন চারঘাটে রাত-দিন পরিশ্রম করে চলেছি।

তিনি আরো বলেন, প্রথম ধাপে ২৮ মেট্রিক টন এবং দ্বিতীয় ধাপে বরাদ্দ পাওয়া ১৪ মেট্রিক টন সরকারি চাল ১টি পৌরসভা ও ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে বিতরণ কার্যক্রম চলছে। চলমান সংকট কেটে না যাওয়া পর্যন্ত আমাদের এ প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম, নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা সামিরা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আনিসুর রহমান, সেনাবাহিনী ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শামীম আহমেদের হাত থেকে খাদ্যসামগ্রী পেয়ে খুশি গুচ্ছগ্রামের হতদরিদ্র পরিবারগুলো।

তারা বলেন, সরকার আমাদের ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়ে কতটুকু খাবার পৌছে দিচ্ছে, সেটি বড় কথা নয়। বড় কথা হলো এই যে, একটি উপজেলার চেয়ারম্যানসহ উপজেলার প্রধান কর্মকর্তা ও সেনা সদস্যরা নিজেরাই এসে আমাদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন। এ জন্য তারা বর্তমান সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। করোনা সংকট মোকাবেলায় চারঘাট উপজেলা প্রশাসনের আন্তরিক প্রচেষ্টায় মুগ্ধ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম।

তিনি তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, করোনা সংকটের কারণে সীমান্তবর্তী চারঘাট উপজেলার নিম্ন আয়ের লোকজন সরকার ঘোষিত নির্দেশে ঘরে রয়েছে। তারা কর্মহীন থেকে পরিবার নিয়ে চরম বিপাকে রয়েছে। আমি নিজেও ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে ২ হাজার জন কর্মহীন হতদরিদ্র পরিবারের বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিয়েছি। আমাদেন সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা চলমান থাকবে। সবাইকে নিজ বাড়িতে নিরাপদে থাকতে অনুরোধ জানান তিনি।

স/এমএস

আমার রাজশাহী
আমার রাজশাহী
রাজশাহী বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর