• মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

আমার রাজশাহী
৭০২

ছেলের বাড়ি থেকে ফিরে রাজশাহীতে নারী করোনায় আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রকাশিত: ২১ মে ২০২০  

রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) ল্যাবে গতকাল বুধবার ৭ জনের নমুনায় করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে দুইজন রাজশাহীর ও পাঁচজন নাটোরের। রাজশাহীর দুইজনের মধ্যে একজন নারী। তার বাড়ি নগরে। এ নিয়ে রাজশাহী নগরে দুইজন নারী করোনা শনাক্ত হলো। আর নতুন আক্রান্ত আরেকজনের বাড়ি বাঘা উপজেলায়। এ নিয়ে রাজশাহী জেলায় মোট আক্রন্ত বেড়ে দাঁড়াল ২৫ জনে।

জানা গেছে, নগরীতে নতুন আক্রান্ত নারীর নাম মোসাঃ ফাতিমা খাতুন (৬৫)। তিনি নগরের রাজপাড়া থানার চন্ডিপুর এলাকার মৃত আবুল কাশেমের স্ত্রী। গত ১৮ মে সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাধ্যমে তার নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি ল্যাবে পাঠানো হয়। বুধবার তার নমুনা পরীক্ষার পর পজেটিভ আসে। বর্তমানে তিনি নিজ বাসায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

জানা গেছে, ফাতিমা খাতুন গত মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে ঢাকার মিরপুর-১ এলাকায় ছোট ছেলে রফিকুল ইসলামের বাসায় গেয়েছিলেন বেড়াতে। রফিকুল ইসলাম পেশায় একজন বেসরকারি মেডিকেল প্রতিষ্ঠানে ইকুপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার ও ঠিকাদারি করেন। গত ১৭ মে তিনি ভাড়া মাইক্রোযোগে বড় ছেলে আলমের সাথে রাজশাহীর নিজ বাড়িতে যান।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ফাতিমা খাতুন বর্তমানে সুস্থ আছেন। তার কোনো ধরনের জ্বর শর্দি কাশি গলা ব্যথা বা অন্য কোনো রোগ নেই। তার পরিবারের সদস্য সংখ্যা সাতজন। তাদেরও বর্তমানে করোনা রোগের কোনো উপসর্গ নেই। স্থানীয় প্রশাসন (রাজপাড়া থানা) আক্রান্ত নারীর বাড়ি লকডাউনের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে বলে জানান গেছে।

অপরদিকে, বাঘার আক্রান্ত ব্যক্তির নাম আবুল হোসেন (৮০)। তার বাড়ি বাউসা ইউনিয়নের ফতেপুর বাউসা গ্রামে। তিনি কৃষিজীবী এবং বাড়িতেই থাকেন। আবুল হোসেন দীর্ঘদিন হতে শ্বাসকষ্ট এবং কাশির সমস্যায় ভুগছিলেন। গত ১৭ মে তার শ্বাসকষ্টের সমস্যা হলে পরিবারের পক্ষ হতে বাঘা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয় চিকিৎসার জন্য। চিকিৎসকরা ওষুধ লিখে দিয়েছে করোনা আক্রান্ত কিনা পরীক্ষা করার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ল্যাবে পাঠায়।

তিনি বর্তমানে বাড়িতে সুস্থ্য আছেন। তার পরিবারে মোট সদস্য ছয়জন। তারা সবাই বাড়িতে আছেন। বাড়িতে বিদেশ এবং ঢাকা ফেরত কেউ নেই। বাঘা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে আবুল হোসেনের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।

রাজশাহীতে গত ১২ এপ্রিল প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। বুধবার পর্যন্ত এ জেলায় মহানগরে দুইজন, বাঘায় দুইজন, পুঠিয়ায় সাতজন, দুর্গাপুরে দুইজন, বাগমারায় তিনজন, মোহনপুরে চারজন, তানোরে চারজন, পবায় দুইজন। এর মধ্যে একজন ঢাকায় শনাক্ত হয়েছে। তবে রাজশাহীতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার বাড়ি পবা উপজেলায়। রাজশাহীতে আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সাতজন সুস্থ্য হয়েছেন। আর মারা গেছেন একজন।

আমার রাজশাহী
আমার রাজশাহী
নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর