শনিবার   ০৪ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১০ শা'বান ১৪৪১

আমার রাজশাহী
১৭

বাংলাদেশ থেকে দক্ষ জনশক্তি নিতে কাতারের আগ্রহ প্রকাশ

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

চিকিৎসক ও প্রকৌশলীর মতো দক্ষ জনশক্তি নিতে আগ্রহ প্রকাশ করে কাতারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোলতান বিন সাদ আল-মুরাইখি বলেছেন, তার দেশ বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক, প্রকৌশলীর মতো বিভিন্ন সেক্টরে দক্ষ জনশক্তি নিতে করতে আগ্রহী।

রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে সফররত কাতারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোলতান বিন সাদ আল-মুরাইখি তার দেশের এ আগ্রহের কথা জানান। জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রীর অফিসে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. আহমদ কায়কাউস, বাংলাদেশে নিযুক্ত কাতারের রাষ্ট্রদূত আহমেদ মোহাম্মদ নাসের আল-দেহাইমি।

বিভিন্ন সেক্টরে দুই দেশের সহযোগিতা বৃদ্ধির সম্ভবনার কথা তুলে ধরে সোলতান বিন সাদ আল-মুরাইখি বলেন, সহযোগিতার বহু ক্ষেত্র এখনো অজানা রয়ে গেছে। আমাদের এসব ক্ষেত্রগুলো খুঁজে বের করতে হবে। এসময় শিক্ষাখাতে দুইদেশের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন কাতারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার প্রশংসা করে কাতারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, আপনার উন্নয়ন কর্মসূচির বাস্তবায়ন আমরা অনুসরণ করছি।

রোহিঙ্গা সংকট বিষয়ে কাতার রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে জানিয়ে আঞ্চলিক ও মুসলিম বিশ্বে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা প্রত্যাশা করেন সোলতান বিন সাদ আল-মুরাইখি।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা অন্যের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে চাই না। এক্ষেত্রে আপনি (শেখ হাসিনা) মুসলিম বিশ্বে দৃষ্টান্ত।

এ সময় সারা দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কাতার বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারে।

সোলতান বিন সাদ আল-মুরাইখি’র মাধ্যমে কাতারের আমিরকে মুজিববর্ষে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে কাতারের আমিরকে বাংলাদেশে অভ্যর্থনা জানাতে পারলে আমরা খুশি হবো।

শিক্ষাই উন্নয়নের চাবিকাঠি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষার ওপর বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে।

দারিদ্র্যের হার ২০ দশমিক ৫ শতাংশে নামিয়ে আনার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে চাই।

মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে সম্পর্কের ওপর গুরুত্ব দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সবাই একসঙ্গে উন্নয়নের জন্য ক্ষেত্রগুলো খুঁজে বের করতে পারি।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের আমরা আর কতদিন রাখবো। এটা আমাদের অর্থনীতির ওপর বোঝা।

‘মিয়ানমার এখনো রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি,’ যোগ করেন তিনি। 

আমার রাজশাহী
আমার রাজশাহী
এই বিভাগের আরো খবর