রোববার   ০৫ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১১ শা'বান ১৪৪১

আমার রাজশাহী
৬৯

রাজশাহীর উন্নয়নের জন্য ৩ হাজার কোটি টাকা একনেকে পাস

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের তিন হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে মঙ্গলবার জাতীয় অর্থ কমিটির সভায় (একনেক)। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অনুমোদন দেন। এর জন্য রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

এদিকে অনেকটা স্বপ্নের নগরীই হয়ে উঠবে রাজশাহী। তবে এর জন্য চাই টাকা। এই টাকার পরিমাণ বর্তমান সময়ে হয়তো খুব বেশি নয়। সাকূল্যে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা। আর এই টাকা পেলেই নতুন সাজে সাজবে তিলোত্তমা রাজশাহী নগরী। ১০৭ ধরনের কাজের বিপরীতে এই টাকা খরচ হবে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কাজ হবে নগরীর ভিতর দিয়ে যাওয়া তিনটি মহাসড়ক প্রশস্তকরণ, রেলক্রসিংয়ের ওপর দিয়ে ৬টি ফ্লাইওভার স্কুল-কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ১২টি ওভারব্রিজ নির্মাণ, এক হাজার ৮০০টি গলির রাস্তা সংস্কার ও নির্মাণ এবং তিনটি বিনোদনকেন্দ্রের উন্নয়ন।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক বলেন, ‘আমরা প্রায় নয় মাস ধরে নগরীর উন্নয়নের জন্য বৃহৎ এই প্রকল্পটি নিয়ে কাজ করেছি। ‘রাজশাহী মহানগরীর সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প’ নামে এই প্রকল্পটি পাশ হয়েছে। এখন অর্থ বরাদ্দ পেলেই এই নগরীকে ঢেলে সাজাতে মাঠে নামবো আমরা। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে বরাদ্দও মিলবে।’

ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে আমরা। আমাদের সন্তানদের জন্য আগামীর বাসযোগ্য নগরী গড়ে তুলতে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন কাজ করে যাচ্ছেন। এ কারণে যেসব রাস্তায় এখনো যানজট শুরু হয়নি, কিন্তু ভবিশ্যতের কথা বিবেচনা করে আমরা সেইসব রাস্তাগুলো প্রশস্তকরণ কাজ হাতে নিয়েছি। আবার যেসব গলিতে এখনো মানুষের বসবাস শুরু হয়নি, কিন্তু অচিরেই সেসব গলিতে বসবাস শুরু হবে, সেসব গলির রাস্তাও আমরা তৈরীর প্রকল্প হাতে নিয়েছি। যেন মানুষ স্বাচ্ছন্দেই সেখানে শুরু থেকেই বসবাস করতে পারেন।’

এদিকে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, রাজশাহী সিটি করপোরেশন রেলক্রসিংয়ের ওপর যে ৬টি ফ্লাইওভার নির্মাণ প্রকল্প হাতে নিতে যাচ্ছে, এই ছয়টি স্থানে মাঝে-মধ্যেই মানুষ পারাপার হতে গিয়ে হতাহতের ঘটনা ঘটে। বছর দুয়েক আগে বহরমপুর রেলক্রসিং পার হতে গিয়ে একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বস্তির মধ্যে ঢুকে পড়ে। এতে ঘরের মধ্যে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী-স্ত্রী নিহত হন। একই স্থানে রেললাইন পার হতে গিয়ে গত কয়েক বছরে অন্তত ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও নগরীর প্রায় সবকটি রেলক্রসি পার হতে গিয়ে গত কয়েক বছরে বেশ কয়েকজন মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। এর মধ্যে রাজশাহী প্রযুক্তি ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রও নিহত হয়েছেন রেলক্রসিং পার হতে গিয়ে।

অন্যদিকে রাজশাহীর অন্যতম ব্যস্ত সড়ক হলো ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক। এই সড়কটিকে ৬ লেনের উন্নীত করার করা হবে। এর মধ্যে দুটি লেন হবে অযান্ত্রিক লেন। অর্থাৎ বাইসাইকেল ও রিকশা-ভ্যানের জন্য এই দুটি লেন ব্যবহার করা হবে। প্রকল্পটি পাশ হলে রাজশাহীতে এই প্রথম শুধু বাইসাইকেল ও রিকশা-ভ্যানের জন্য আলাদা রাস্তা হবে নগরবাসীর জন্য। এর আগে বাইসাইকেলের জন্য রাসিক ফুটপাত তৈরী করলেও এবারই আলাদাভাবে তৈরী হবে রাস্তা।

এছাড়াও নগরীর এক হাজার ৮০০টি অলি-গলির রাস্তা পাকাকরণসহ ড্রেন নির্মাণ করা হবে এই প্রকল্পের আওতায়। এর আগে একসঙ্গে এতোগুলো রাস্তা সংস্কার ও ড্রেন নির্মাণকাজ হাতে নিতে পারেনি রাসিক।

এ প্রকল্প নিয়ে জানতে চাইলে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘রাজশাহী নগরীর সার্বিক উন্নয়ন করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এই শহরকে একটি উন্নত শহর হিসেবে গড়ে তুলতে এটিকে ঢেলে সাজাতে চাই। এর জন্য যা যা করার দরকার তাই করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগিতায় রাজশাহীকে আমরা পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতেও বিভিন্ন কাজ হাতে নিয়েছি।’

স/এমএস

আমার রাজশাহী
আমার রাজশাহী
এই বিভাগের আরো খবর